সংকলন
আহসান-রাফি
প্রতিযোগিতা-২

নীড়ে ফেরার গল্প-৪১ | আহসান রাফি

“আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারকাতুহ”
“আমি পেয়েছি মহান রবের নীড়ের ছায়া”
রবের নীড়ে ফেরার গল্প লিখতে গেলে মনে পড়ে যায় অতীতে ফেলে আসা সেই গুনাহের জীবনের কথা।ঘুম থেকে ওঠা থেকে শুরু করে আবার ঘুমাতে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত মহান রবকে স্মরণ করতাম না একবারও।সেই যুবক আজ আমি মহান রবকে ছাড়া যেন আর কিছুই বুঝিনা।
Tijarah Shop
আল্লাহ তা’আলা কুরআনুল কারিমে বলেছেন,”আমি জ্বীন ও মানুষকে সৃষ্টি করেছি শুধুমাত্র আমার ইবাদত করার জন্য।”(সুরা যারিয়াত:৫৬)।কিন্তু আমি আল্লাহকে ভালোভাবে চিনতামই না একসময়,ইবাদত তো দূরের কথা। মহান রবের হুকুম পালন না করেও আমার ছিলো তাঁর প্রতি নানান অভিযোগ। আল্লাহ আমাকে সাহায্য করেন না,পরীক্ষায় কেন আমি ভালো ফলাফল করতে পারিনা,আমার এতো অভাব কেন ইত্যাদি ইত্যাদি নানান দুনিয়াবি অভিযোগ। কিন্তু হঠাৎ একদিন……………….
২০১৯ সালের রমাদ্বন মাস,১৮ তম সিয়াম। রমাদ্বন মাসে বরাবরই গান কম ও সুরা বা ইসলামিক গজল বেশি শোনা হয়।সেইদিন YouTube এ স্ক্রলিং করতে করতে একটা ভিডিও সামনে আসলো।ইন্দোনেশিয়ার এক ইমামের সালাতের দৃশ্য ভিডিও করা ছিলো(ইমামের নাম Ustad Abdul Qadir)।তিনি সুরা আল-ক্বলাম তিলাওয়াত করছিলেন।হঠাৎ তিনি ৩৩ নাম্বার আয়াত পাঠ করতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়লেন।সেই সময়ই মনে এক আলাদা অনুভূতি জাগ্রত হলো।আয়াতটি হলো:
كَذٰلِكَ الْعَذَابُ ۖ وَلَعَذَابُ الْءَاخِرَةِ أَكْبَرُ ۚ لَوْ كَانُوا يَعْلَمُونَ
মনে মনে আয়াতের বঙ্গানুবাদ জানা ইচ্ছে হলো।আয়াতের অর্থ হলো: “শাস্তি এভাবেই আসে এবং পরকালের শাস্তি আরও গুরুতর; যদি তারা জানত!”(আল-ক্বলাম:৩৩) আয়াতের অর্থ ও তাফসীর দেখে অনেকটা ঘাবড়ে গেলাম ও হৃদয়ে আখিরাতের ভয় অনুভূত হলো।রাতে অনেক ভাবলাম ও নিজেকে বলেছিলাম,কতদিন আর এভাবে,তুই কি মরবি না,আল্লাহ কি তোকে এমনই এমনই ছেড়ে দিবে!!আরও নানা  অজানা প্রশ্ন।সেইদিন থেকেই আমার রবের নীড়ে ফেরার সূচনা হয়।পাঁচ ওয়াক্ত সালাত,সোমবার ও বৃহস্পতিবার নফল সিয়াম পালন করতাম।নীড়ে ফেরার পূর্বে আমার সবচেয়ে প্রিয় ছিল গান।সেই গানগুলো সেদিন ৩০ সেকেন্ডেই মোবাইল থেকে ডিলিট করে দিলাম।সেই যুবক আজ আমি এই পথে মানে আল্লাহর পথে।
আলহামদুলিল্লাহ!তখন থেকে আমি আমার দাড়ি আর ছোট করিনি।অবৈধ সম্পর্কগুলো সব পরিত্যাগ করে আল্লাহর পথে ধাবিত হই।
তবে এই ফেরা সচারাচর কেউ মেনে নিতে চায় না।আমার পরিবার ও সমাজও এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত ছিল।নানান কটুকথা বলে খেপাতো আমাকে।আমি সেই কটুকথা উপেক্ষা করে আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস ও ধৈর্য রেখে তাদের সাথে ভালো ব্যবহার করি।আলহামদুলিল্লাহ আজও টিকে আছি রবের পথে।মহান রব যেন মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত এই পথেই অটুট রাখেন ও ঈমানী মৃত্যু দান করেন ও আখিরাতে জান্নাত দান করেন সেটাই এখন সবসময় দোয়া করি। আল্লাহ আমাদের মাফ করুন।

Facebook Comments

Related posts

নীড়ে ফেরার গল্প-৪৮ | সিলভিয়া সিলভি

সংকলন টিম

নীড়ে ফেরার গল্প-৩৪ | ফাহিম আমজাদ

সংকলন টিম

নীড়ে ফেরার গল্প-২৪ | ফাহিম দানিয়াল

সংকলন টিম

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!