Category

মাহদি হাসান কাসেমি

Category

মুজেযা কি? ‘معجزة’ মুজেযা শব্দটি ‘عجز’ থেকে নির্গত। অর্থ অক্ষম ও অপারগ। আর ‘معجزة’  হলো অক্ষমকারী। যা قدرة বা সক্ষমতার বিপরীতে আসে।[1] পরিভাষায় মুজেযা বলা হয়: الخارق للعادة المقرون باالتحدى  ‘অভ্যাস বহির্ভূত এমন অলৌকিক বিষয়, যা চ্যালেঞ্জের বিপরীতে আসে।[2] ইবনে হামদান বলেন: المعجزة هي ما خرق العادة من قول أو فعل إذا وافق دعوى الرسالة وقارنها وطابقها على جهة التحدي ابتداء بحيث لا يقدر أحد عليها ولا على مثلها، ولا…

পৃথিবীর বুকে এমন জাতি খুব কমই রয়েছে যারা রাসুলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সিরাত নিয়ে কাজ করেনি। তার মহামন্বীত জীবনচরিত থেকে উপকৃত হয়নি। তার দ্বীপ্ত আলো থেকে জীবন রঙিন করেনি। সমাজ ও রাষ্ট্র আলোকময় করার কথা ভাবেনি। তবে এমন জাতি মেলা ভার, যারা রাসুলের জীবনী জাল করে নিজেদের হীনস্বার্থ চরিতার্থ করেছে। উদ্দেশিত কাউকে বড় করার লক্ষ্যে মনমতো ব্যাখ্যা করেছে। এমনকি এ জন্য সাহাবায়ে কিরামগণের ওপর অপবাদ আরোপ করতঃ তাদেরকে অতি…

১৮৬৮ সালের কোনো এক সকাল। পাঞ্জাবের শিয়ালকোটের কোর্টের ইহুদি ডেপুটি কমিশনার পারকিনসন বসে আছে তার কার্যালয়ে। পাশেই রয়েছে পিয়ন মির্জা গোলাম আহমাদ, যাকে তার পিতা তার হারানো জায়গীর ফিরে পাবার আশায় গোলামির আবরণে চাকুরি দিয়েছিল এখানে। হঠাৎ ছদ্মবেশী ইংরেজ গোয়েন্দা, পাঞ্জাব মিশনারীর ইনচার্জ বাটলার এম.এ. এর আগমন। দাঁড়িয়ে গেল পারকিনসন, ‘আপনার কোনো প্রয়োজন হুজুর? আমাদের ডেকে পাঠালেই তো পারতেন! কষ্ট করে আসার প্রয়োজন কি ছিল?’[1] অদূরে দাঁড়ানো মির্জা গোলাম আহমাদ।…

মির্জা গোলাম আহমাদ কাদিয়ানি ছিলেন ইহুদি খ্রিস্টানদের খেলনা পুতুল। তাকে তারা যেভাবে নাচিয়েছে, তিনি সেভাবেই নেচেছেন। যা বলতে বলেছে, তাই বলেছেন। যা করতে বলেছে, তাই করেছেন। তবে এ ক্রীড়ানককে নিজেদের মতো করে গড়ার ক্ষেত্রে পথভ্রষ্ট এ দুজাতির মধ্যে যদি কোনো বড় মতপার্থক্যও পরিলক্ষিত হত, মুখ বুজে সহ্য করে নিত। মাসিহে মাওউদ ঠিক এমনই এক চিন্তাধারা। পথভ্রষ্ট এই দু’ জাতির মতভেদপূর্ণ এক প্রধান মতবাদ। যা ইহুদি জাতির ইতিহাস অধ্যায়ন ব্যতীত জানা…

কিতাব: কাশফুল আসরার মূল: সাইয়্যেদ হুসাইন আল-মুসাওয়ি (শিয়া মুজতাহিদ আলেম) আমরা ইতিহাস পাঠ করলে হালাকু খানের কথা জানতে পারি। যে বাগদাদে এ পরিমাণে মুসলমান হত্যা করেছিলো যে, দজলা নদিতে পানির বদলে রক্ত প্রবাহিত হওয়া আরম্ভ হয়েছিলো। এ পরিমাণই বিভিন্ন ফনের কিতাব সমুদ্র নিক্ষেপ করে নষ্ট করে দিয়েছিলো। এ সব হত্যা ও নিকৃষ্টতম কাণ্ড কায়সার তুসি এবং মুহাম্মদ বিন আলকামি এর পরামর্শে হয়েছিলো। যারা উভয়ে শিয়া এবং আব্বাসীয় খলিফার মন্ত্রী ছিলো।…

কিতাব: কাশফুল আসরার মূল: সাইয়্যেদ হুসাইন আল-মুসাওয়ি (শিয়া মুজতাহিদ আলেম) শিয়ারা সমস্ত সাহাবায়ে কিরাম রিদওয়ানুল্লাহি আলাইহিম আজমাঈনদের অত্যাধিক পরিমাণ গালি ও অভিসম্পাত করে থাকে। বিশেষত হযরত আবু বকর, হযরত উমার ও হযরত উসমান রাদিয়াল্লাহু আনহুম এবং হযরত আয়শা ও হযরত হাফসা রাদিয়াল্লাহু আনহুমাকে ক্রোধ ও অভিসম্পাতের স্বীকার বানায়। শিয়াদের মধ্য প্রচালিত একটি বদদোয়া রয়েছে: হে আল্লাহ! আপনি কোরাইশ বংশের দুই ভূত আবু বকর ও উমার এবং তাদের দুই তাগূতকন্যা আয়শা…

কিতাব: কাশফুল আসরার মূল: সাইয়্যেদ হুসাইন আল-মুসাওয়ি ভাষন্তর: মাহদি হাসান কাসেমি শিয়া ফকিহ ও মুজতাহিদদের মত ও তাদের গ্রহণযোগ্য কিতাবাদি গভীরভাবে অধ্যায়নের মাধ্যমে এই সিদ্ধান্তেই উপনীত হওয়া যায় যে, শিয়াদের কেবল একটাই শত্রু। আর তা হলো আহলুস সুন্নাত ওয়াল জামাআত। এই আহলুস সুন্নাত ওয়াল জামাআতকে শিয়ারা কয়েকটি নামেই অভিহিত করে থাকে। তার মধ্যে দুটো হলো আম্মা আর নাওয়াসিব। আহলুস সুন্নাত ওয়াল জামাআত বংশগতভাবেই অপদস্ত ও অপবিত্র—শিয়াদের আকিদার মধ্য এটাও অন্যতম।…

Pin It
error: Content is protected !!