ভালবাসার এক নাম ইমাম আল হাফেজ জালালুদ্দিন আস সুয়ূত্বী রহিমাহুল্লাহ । আব্দুল্লাহ আল মামুন

জালালুদ্দিন আস সুয়ূত্বী

ইমাম হাফেয সুয়ুতী রাহিমাহুল্লাহর

পূর্ণনাম-

‘জালাল উদ্দীন আবদুর রহমান ইবনুল কামাল, আবূ বকর ইবনে মুহাম্মদ ইবনে সা-বিক্বুদ্দীন ইবনুল ফখর ওসমান ইবনে নাযিরুদ্দীন মুহাম্মদ ইবনে শায়খ হুমাম উদ্দীন।
.
জন্মঃ

তাঁর জন্ম ১ লা রজব, ৮৪৯ হিজরী রবিবার রাতে হয়েছিলো।
.
‘খুদ্বায়রী’ ও ‘আস্ সুয়ূত্বী’ ‘সুয়ূত্বী’ সংক্ষেপে এ দু’টি সম্পর্কজনিত শব্দও তাঁর নামের সাথে সংযোজন করা হয়।তাঁর বংশীয় পরম্পরা এক অনারবীয় খান্দান পর্যন্ত পৌঁছে যায়।
.
তিনি তাঁরই লিখিত কিতাব ‘হুসনুল মুহা-দ্বারাহ্ ফী-আখবা-রি মিসর ওয়াল ক্বাহেরাহ্’য় আত্মজীবনীতে লিখেছেন,
.
‘‘আমাকে এক নির্ভরযোগ্য ব্যক্তি বলেছেন, আমার পিতা রহিমাহুল্লাহু তা’আলা বর্ণনা করতেন যে, আমাদের পূর্বপুরুষ(বংশের মূল পুরুষ) একজন ‘আজমী’ (অনারবীয়) ছিলেন এবং পূর্বাঞ্চলীয় লোক ছিলেন।”
.
ইমাম সুয়ুতী’র খান্দান মিশরে আসার পূর্বে বাগদাদের মহল্লা “খুদ্বায়রিয়্যাহ্”য় বসবাস করতেন। এ মহল্লা বাগদাদের পূর্ব প্রান্তে ইমাম-ই আ’যম(আবু হানিফা) রাহিমাহুল্লাহু তাআলার কবর শরীফের নিকটে অবস্থিত।
.
‘খুদ্বায়রী’ সম্পর্কবাচক উপাধির কারণ এটাই। ইমাম সুয়ূতীর জন্মের কয়েক পুরুষ পূর্বে এ খান্দান ইরাক থেকে মিশর এসেছেন এবং মিশরের ‘আস্‌য়ুত্ব’ শহরে বসবাস করতেন। সেটার নামও ‘খুদ্বায়রিয়্যাহ্’ রেখে দেন।
.
ইমাম সুয়ূত্বীর পিতা আস্‌য়ূত্ব থেকে কায়রো চলে যান। সেখানে তিনি ‘ইবনে ত্বূলূন জামে মসজিদ’ -এ খতীব হিসেবে দায়িত্ব পালন করতেন। সাথে সাথে শায়খূনী জামে মসজিদ সংলগ্ন মাদরাসায় ‘ফিক্বহ’র ওস্তাদ হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন।
.
৮৫৫ হিজরীতে তাঁর ইনতিক্বাল হয়। তখন ইমাম সুয়ূত্বীর বয়স পাঁচ কিংবা ছয় বছর ছিলো। তখন তাঁর অভিভাবকত্বের দায়িত্ব তাঁর পিতার এক সূফী বন্ধু নিয়েছিলেন। ইমাম সুয়ূত্বী ৮ বছর বয়সে ক্বোরআন করীম হেফয করে নিয়েছিলেন। তারপর তিনি নাহ্ভ ও ফিক্বহ ‘মতন’ মুখস্থ করতে মশগুল হন।
.
ইমাম সুয়ূত্বী তাঁর যুগের বহু ওস্তাদ ও মাশাইখ থেকে জ্ঞানার্জন করেন। তাঁদের অধিকাংশের উল্লেখ (আলোচনা) তিনি তাঁর ‘হুসনুল মুহা-দ্বারাহ্‌’য় করেছেন।
.
ইমাম সুয়ূতী (রহঃ) তাঁর যুগে প্রচলিত সমস্ত আরবী ও ইসলামী বিষয়াদির জ্ঞান অর্জন করেন এবং সেগুলোতে পূর্ণ দক্ষতা লাভ করেন। ওইসব বিষয়ে তাঁর লেখনী (গ্রন্থ-পুস্তক)ও রয়েছে। তাঁর প্রণীত গ্রন্থ পুস্তকাদির আধিক্য ও বিভিন্ন বিষয়ে তাঁর লেখনী অনুসারে তাঁরপর তাঁর মত আর কাউকে দেখা যায়না; এমনকি পূর্ববর্তীদের মধ্যেও হয়তো তাঁর মতো দু/একজন পাওয়া যায় কিনা সংশয় রয়েছে।
.
তিনি হাদীস ও হাদীস শাস্ত্রের বিভিন্ন বিষয় তথা উলূম ও উসূল, তাফসীর,উসূল ও উলূমে তাফাসীর, ফিক্বহ্ ও এর উসূল, কালাম,জাদাল, তারীখ তথা ইতিহাস, অনুবাদ, তাসাওফ, আরবী সাহিত্য, বালাগাত তথা অলংকার (মা’আনী, বয়ান ও বদী) নাহভ, সরফ, অভিধান ও মানত্বিক, ইসলামী রাষ্ট্র বিজ্ঞান, ইসলামী মনোবিজ্ঞান, ইসলামী সমাজ বিজ্ঞান সহ প্রায় সকল শাস্ত্রের উলূম ও ফুনূনের উপর তিনি শত-সহস্র কিতাব রচনা করেছেন। (আমার মনে হয়) এমন কোন শাস্ত্র ও ফন্ন নেই যার উপর তার ক্বলম অতিবাহিত হয়নি!!! প্রায় ১৬০০ কিতাব তার হস্তে রচিত!!
.
তিনি তাঁর ‘হুসনুল মুহাদ্বারাহ্’য় লিখেছেন-

وَبَلغَتْ مُؤَلَّفَاتِىْ الْانِ ثَلاَثَمِائَةِ كِتَابٍ سِوى مَا غَسَلْتُه اَوْ رَجَعْتُ عَنْه.

অর্থাৎ এ পর্যন্ত আমার লিখিত কিতাবগুলোর সংখ্যা তিনশ’ হয়ে গেছে।এগুলোর মধ্যে ওইসব কিতাব নেই, যেগুলো আমি বিনষ্ট করে ফেলেছি কিংবা যেগুলো আমি প্রত্যাহার করে নিয়েছি।
.
কিতাবগুলোর এ সংখ্যা ‘হুসনুল মুহা-দ্বারাহ্’ লিখার সময়কার ছিলো। আর এর চেয়েও বেশী সংখ্যক কিতাব তিনি পরবর্তীতেও লিখেছেন।
.
তাঁর কিতাবগুলোর মধ্যে এমন বহু কিতাব রয়েছে, যেগুলো কয়েক খণ্ডে বিন্যস্থ।তন্মধ্যে কিছু কিতাব এমনও রয়েছে, যেগুলো ‘দাওয়া-ইরে মা’আ-রিফ’ (জ্ঞান-বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখা সম্ভার)-এর মর্যাদা রাখে।
.
পুস্তক প্রণয়ন ও রচনার ময়দানে আল্লাহ্ তা’আলা তাঁকে যেই সুবর্ণ সামর্থ্য দান করেছেন, তা খুব কম সংখ্যক লোকই পেয়েছেন। আরবী ও ইসলামী জ্ঞানের এমন কোন রাজপথ নেই, যাতে তাঁর পদচারণা পাওয়া যায় না।
.
তাঁকে ‘হাত্বিবুল লায়ল’ (যাচাই বিহীন লোক) বলে যাঁরা সমালোচনা করেন তারাও জ্ঞান, গবেষণা ও বিশ্লেশষণের উপত্যকায় তাঁর সাহায্য ছাড়া এক কদমও চলতে পারে না। বাস্তবাবস্থা হচ্ছে-বেশীর ভাগ পূর্ববর্তী ইমামগণের মতো ইমাম সুয়ূতীরও দু’টি যোগ্যতাপূর্ণ অবস্থান রয়েছে- একটি হচ্ছে জ্ঞান ভাণ্ডার ও লেখকের আর অপরটি হচ্ছে গভীর গবেষক ও বিশ্লেষক এবং সুক্ষ্মদর্শী (মুহাক্কিক্ব ও মুদাক্কিক্ব)-এর। ইমাম সুয়ূতীর জন্য সাধারণভাবে ‘হাত্বিবুল লায়ল’ (নির্বিচারে উদ্ধৃতকারী লেখক) উপাধি ব্যবহারকারীগণ তাঁর এ দু’টি মর্যাদাপূর্ণ স্তরের মধ্যে পার্থক্য করতে অক্ষম এবং পূর্ববর্তী ইমামগণের উন্নত রুচি ও পদ্ধতি সম্পর্কেও কম অবগত।
.
ইমাম জালাল উদ্দীন সুয়ূতী দীর্ঘদিন যাবৎ প্রসিদ্ধ ‘খানক্বাহ্-ই বায়বার্সিয়া’র ‘ওয়াক্বফ এস্টেট’-এর মহাব্যবস্থাপক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। তদানীন্তনকালে এটা মিশরের সর্বাপেক্ষা বড় খানক্বাহ্ ছিলো; কিন্তু যখন সুলতান মুহাম্মদ ক্বাতবাঈ মিশরের শাসন-ক্ষমতা গ্রহণ করেন, তখন ভণ্ড সূফীদের একটি দল সুলতানের নিকট ইমাম সুয়ূত্বীর বিপক্ষে কিছু অমূলক অভিযোগ করেছিলো।
.
এতদ্‌ভিত্তিতে সুলতান তাঁকে উক্ত পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছিলেন। এ অপসারণের পর থেকে তিনি দুনিয়া ও এর সমস্ত সম্পর্ক থেকে নিজে নিজে অবসর গ্রহণ করেন এবং লেখালেখিতে আত্মনিয়োগ করেন। এমন একাকীত্বের মধ্যে ইমাম সুয়ূতী তাঁর বেশীরভাগ কিতাব রচনা করেন। তাঁর এ একাক্বীত্ব ও জ্ঞানগত ই’তিকাফ তাঁর জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অব্যাহত ছিলো। এ বিশ বছর ব্যাপী সময়সীমায় তিনি লোকজনের সাথে মেলামেশা পর্যন্ত বন্ধ করে দিয়েছিলেন। এমনকি তাঁর ঘরের নীল নদের দিকে খোলা হয় এমন জানালাগুলোও বন্ধ করে দিয়েছিলেন।
.
হাফেজ সুয়ূত্বী তার অনবদ্য রচনা “তাদরীবুর রাবী” র ভুমিকায় লিখেছেন সে সময় পর্যন্ত তার ১ লাখ হাদীস মুখস্থ রয়েছে যদি আরো পেতেন তাহলে সেগুলোও মুখস্থ হত!!(সুবাহানাল্লাহ)
আর নিজের জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে ইসলামী ও আরবী জ্ঞানচর্চা, এগুলো নিয়ে চিন্তা-গবেষণা এবং গ্রন্থ-পুস্তক রচনা ও প্রণয়নের মধ্যে অতিবাহিত করেন। ৯১১ হিজরীতে এ যুগশ্রেষ্ঠ জ্ঞানী ও গুণী ইমামের ইনতিক্বাল হয়েছে। আল্লাহ্ তায়ালা তাঁর উপর রহমতের বারি(বৃষ্টি) বর্ষণ করুন।(আমীন)

Facebook Comments