Archive

June 2020

Browsing

মাহে রমজান। ত্রয়োদশ হিজরি। চলছে ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা ওমর ইবনুল খাত্তাব রা.এর স্বর্ণালী শাসনকাল। অন্ধকারের অমানিশাকে দূরে ঠেলে ইসলামের নতুন সকালকে প্রস্ফুটিত করতে সাহাবায়ে কেরাম রা.ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছেন বিভিন্ন প্রান্তে। আল্লাহর তরবারি খালিদ বিন ওয়ালিদ রা. তখন ছিলেন রোমকদের মূর্তিমান ত্রাস। সিরীয় অঞ্চলে তাঁর ঘোড়ার খুঁড়ের আওয়াজ শুনে ক্রমেই কেঁপে উঠছে রোমের প্রাসাদ। অপরদিকে আরেক বীর মুজাহিদ মুসান্না ইবনুল হারেসা তখন করে দিয়েছেন পারসিকদের রাতের ঘুম হারাম। কিসরার প্রাসাদে বিরাজ…

কয়েক বছর ধরে বাংলা ভাষায় ইতিহাসচর্চার একটা জাগরণ হয়েছে বলে ধরা যায়। এ সময় ইতিহাস বিষয়ে প্রচুর বইপত্র অনুবাদ হয়েছে, মৌলিক গ্রন্থ রচনা করা হয়েছে। সামনেও ইতিহাস নিয়ে বিস্তৃত কলেবরের বেশ কয়েকটি বই প্রকাশিত হতে যাচ্ছে। ইতিহাস নিয়ে লিখিত বইপত্রের প্রতি মানুষের আগ্রহ ক্রমশ বাড়ছে বলেই মনে হচ্ছে। তবে পাঠের ক্ষেত্রে কিছুটা শূন্যতা দেখা যাচ্ছে। এই শূন্যতা হলো গুরুত্বের বিচারে বিষয় নির্ধারণের শূন্যতা। কোন বিষয়টি আগে জানা প্রয়োজন, কোন বিষয়টি…

মুজেযা কি? ‘معجزة’ মুজেযা শব্দটি ‘عجز’ থেকে নির্গত। অর্থ অক্ষম ও অপারগ। আর ‘معجزة’  হলো অক্ষমকারী। যা قدرة বা সক্ষমতার বিপরীতে আসে।[1] পরিভাষায় মুজেযা বলা হয়: الخارق للعادة المقرون باالتحدى  ‘অভ্যাস বহির্ভূত এমন অলৌকিক বিষয়, যা চ্যালেঞ্জের বিপরীতে আসে।[2] ইবনে হামদান বলেন: المعجزة هي ما خرق العادة من قول أو فعل إذا وافق دعوى الرسالة وقارنها وطابقها على جهة التحدي ابتداء بحيث لا يقدر أحد عليها ولا على مثلها، ولا…

রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হিজরতের পর কেটে গেছে চারটি বছর। সে বছর মক্কার বনু শামস গোত্রে আমের ইবনু কুরাইজ আল-আবশামির ঘরে জন্ম নিল শুভ্র সুন্দর এক শিশু। তিন বছর পর সপ্তম হিজরীতে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মক্কায় এলেন উমরাতুল কাজার উদ্দেশ্যে। সেদিনের সেই ছোট্ট শিশুর বয়স এখন তিন। গুটিগুটি পায়ে হাঁটতে শিখেছে সবে। তাঁকে নিয়ে আসা হলো রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে। রাসুল তাঁকে দেখে বনু শামসকে…

স্পেন বিজয়। ২৮ রমজান, ৯২ হিজরি। – উমাইয়া খেলাফতের তখন স্বর্ণসময়। রাজধানী দামেশকের মসনদে উমাইয়া বংশের অন্যতম শাসক খলিফা আল-ওয়ালিদ বিন আব্দুল মালিক সমাসীন। খলিফা আল-ওয়ালিদের নিয়োগে উত্তর আফ্রিকার গভর্নর ছিলেন মুসলিম সেনাপতি মুসা বিন নুসাইর। মূসা বিন নুসাইর ছিলেন ইতিহাসের সাহসী এক মুসলিম বীর। যার ঘোড়া ছুটে বেড়িয়েছে সমগ্র উত্তর আফ্রিকা। তার নেতৃত্বেই মরক্কো পর্যন্ত আফ্রিকার বিশাল অঞ্চল দিগ্বিজয়ী মুসলিম বাহিনী দখল করেছে। আর মরক্কোর ওপাড়েই রয়েছে স্পেন।স্পেনই ছিল…

আলাপটা নিজের অভিজ্ঞতা দিয়েই শুরু করি… ২০০৪ সালের কথা। ক্লাস সিক্সে পড়ি তখন। সে সময় নসীম হিজাজি ও আলতামাশের বইপত্র খুব চলতো। আব্বুকে বললাম, এগুলো কিনে দিন। এখানে ইসলামের ইতিহাস আছে। পড়বো। আব্বু বললেন, কোনো বই নিজে পছন্দ করে পড়া ঠিক হবে না। আগে কোনো আলেমের সাথে পরামর্শ করতে হবে। তখন আমরা হাজারিবাগ থাকি। একদিন আব্বু মিরপুর নিয়ে গেলেন, মুফতি দিলাওয়ার হুসাইন সাহেবের কাছে। হুজুরকে বললেন, আমার ছেলে নসীম হিজাজির…

ইনবক্সে ও কমেন্টে অনেকে সাইমুম সিরিজ ও ক্রুসেড সিরিজ সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। সবাইকে আলাদা আলাদা উত্তর দেয়া কষ্টকর। তাই এখানেই মোটাদাগে কয়েকটি কথা বলে দিচ্ছি। ১। সাইমুম সিরিজ ও ক্রুসেড সিরিজ দুটিই সাহিত্যের বই। কেউ এগুলো পড়লে সাহিত্যের বই মনে করে বিনোদনের জন্য পড়বেন। এগুলোকে জ্ঞানের বই কিংবা ধর্মীয় বই মনে করার কিছু নেই। এসব বই থেকে কর্মপন্থাও শেখার নেই। এই মৌলিক বিষয়টি স্পষ্ট থাকলে আর বেশি কথা বলার দরকার…

১ম পর্বের পর প্রশ্ন—১৫: তোমার নবি কে? উত্তর: আমার নবি মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)। প্রশ্ন—১৬: ‘মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ’-এর অর্থ ও মর্ম কী? উত্তর: মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ-এর অর্থ হচ্ছে, মুহাম্মাদ আল্লাহর রাসুল এবং এর মর্ম হচ্ছে, আল্লাহ তাআলা মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে সমগ্র মানবজাতির জন্য বাশির ও নাযির তথা (জান্নাতের) সুসংবাদাতা ও (জাহান্নামের ব্যাপারে) সতর্ককারীরূপে প্রেরণ করেছেন। প্রশ্ন—১৭: আমাদের নবির নাম, তাঁর বাবার নাম ও তাঁর দাদার নাম কী? উত্তর: আমাদের নবির…

অনুবাদঃ মানসূর আহমাদ ভূমিকা: শিশুরা হচ্ছে ছোট্ট চারাগাছের মতো। ছোটবেলা থেকেই তাদেরকে দীনের বুঝ দিয়ে, সরল-সঠিক পথের দিশা দিয়ে গড়ে তুললে তারা আজীবন সোজা থাকবে ইনশাআল্লাহ। আর ছোটবেলায় সঠিক পথের দিশা না দিয়ে বাঁকা হয়ে উঠতে দিলে পরবর্তীতে ডালপালা ভাঙাই যায়; সোজা করা যায় না। তাই শিশুদেরকে ছোটবেলা থেকেই দীনের জ্ঞান দিয়ে গড়ে তোলা আবশ্যক। আবার শিশুদেরকে গড়ে তুলতে হবে তাদের উপযোগী জ্ঞান দিয়ে। বড়দের অনেক বিষয় শিশুদেরকে শেখানোর চেষ্টা…

অনুবাদ: মানসূর আহমাদ প্রশ্ন—১: সুরা ফাতিহার একটি আয়াত সম্পর্কে শাইখুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া রাহিমাহুল্লাহ বলেছেন, এই আয়াতটি রিয়া (লোকদেখানো মনোভাব) ও অহংকার দূর করে দেয়। —এটি কোন আয়াত? উত্তর: আয়াতটি হচ্ছে— اِیَّاکَ نَعۡبُدُ وَ اِیَّاکَ نَسۡتَعِیۡنُ ؕ﴿۴﴾ (অর্থ: আমরা আপনারই ইবাদত করি এবং আপনারই নিকট সাহায্য চাই। [সুরা ফাতিহা : ৪]) এই আয়াতের اِیَّاکَ نَعۡبُدُ আয়াতাংশ রিয়া দূর করে এবং وَ اِیَّاکَ نَسۡتَعِیۡنُؕ আয়াতাংশ অহংকার দূর করে দেয়। প্রশ্ন—২: সুরা…

Pin It
error: Content is protected !!